বুধবার, ১৯ জুন ২০২৪, ০৭:১০ পূর্বাহ্ন

দেশ এগিয়ে যাচ্ছে তা অনেকের পছন্দ হচ্ছে না: তথ্যমন্ত্রী

ভয়েসবাংলা প্রতিবেদক / ১২২ বার
আপডেট : সোমবার, ২০ ডিসেম্বর, ২০২১

তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ বলেছেন, আজকে বাংলাদেশ এগিয়ে যাচ্ছে। এ এগিয়ে যাওয়াটা অনেকের পছন্দ হচ্ছে না।

মবার সন্ধ্যা ৬টার দিকে রাজধানীর কল্যাণপুরে জাতীয় গণমাধ্যম ইনস্টিটিউটের (এনআইএমসি) শেখ রাসেল মিলনায়তনে ‘মহান বিজয় দিবস ও বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবর্ষ উদযাপন’ উপলক্ষে জাতীয় গণমাধ্যম ইনস্টিটিউট, বাংলাদেশ চলচ্চিত্র ও টেলিভিশন ইনস্টিটিউটের যৌথ উদ্যোগে দুই দিনব্যাপী চলচ্চিত্র প্রদর্শনী ও সেমিনারে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। জাতীয় গণমাধ্যম ইনস্টিটিউটের মহাপরিচালক (অতিরিক্ত সচিব) এনডিসি শাহিন ইসলামের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ সরকারের সাবেক তথ্য অফিসার, বাংলাদেশ চলচ্চিত্র ও টেলিভিশন ইনস্টিটিউটের (বিসিটিআই) প্রধান নির্বাহী আবুল কালাম আজাদের প্রমুখ।

তথ্যমন্ত্রী বলেন, মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর সাহেব বক্তৃতা করে বলেছেন, ৫০ বছরেও দেশ আগায়নি। অনেক ক্ষেত্রে পিছিয়ে গেছে। মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর সাহেবের কাছে আমি প্রশ্ন রাখতে চাই। স্বাধীনতা অর্জনের পরে মাথাপিছু আয় ১শ ডলারের নিচে ছিল। ১৩ বছর আগেও ২০০৯ সালের শুরুতে মাথাপিছু আয় ছিল ৬শ ডলার। আজকে সেটি ২৫৫৪ ডলারে উন্নীত হয়েছে। মাথাপিছু আয় চারগুণেরও বেশি বেড়েছে। দারিদ্রসীমার নিচে মানুষের হার ছিল ৪১ শতাংশ। সেটি আজকে ২০ শতাংশের নিচে নেমে এসেছে। এগুলো তারা দেখেও দেখতে পায় না।

বিএনপির বিজয় র‍্যালির কথা উল্লেখ করে মন্ত্রী বলেন, তারা মহান বিজয় দিবসে র‍্যালি করেছেন। সেই র‍্যালিতে তারা মিথ্যাচার করেছেন। কোনও রাজনীতিবিদ বাস্তব সত্য, ধ্রুব সত্য যেটি দিবালোকের মতো স্পষ্ট সেটিকে কোনো রাজনৈতিক নেতা বা কোনো রাজনৈতিক দল অস্বীকার করে সেটি এক ধরনের সততা সূলভ নয়, সেটি হচ্ছে জনগণের সঙ্গে প্রতারণা। সিলেটে স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী অনুষ্ঠানে বিএনপি নেতারা চেয়ার ছোড়াছুড়ি করলেন। যারা চেয়ারে বসা নিয়ে মারামারি করেন, চেয়ার ছোড়াছুড়ি করেন, তারা দেশের চেয়ারে বসলে যে কি করবে। সেটা সহজেই বোঝা যায়।

মন্ত্রী বলেন, সরকারের সমালোচনা অবশ্যই থাকবে। আমরা সমালোচনা সমাদৃত করার মানসিকতা পোষণ করি। আমরা একটি বহুমাত্রিক সমাজে বাস করছি। অতীতের সব সরকারের কাজে ভুল হয়েছে, এখনো হচ্ছে, ভবিষ্যতেও হবে। কোনো সরকারই সঠিক কাজ করতে পারবে না। সেই ভুলগুলো তুলে ধরে সমালোচানা করুন। কিন্তু আজ দেশ এগিয়ে গেছে। দেশের অগ্রগতির জাতিসংঘের মহাসচিব, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন, বিশ্ব ব্যাংকের প্রেসিডেন্ট প্রশংসা করেছেন। কিন্তু বিএনপি-জামায়াত প্রশংসা করতে পারছে না। আমাদের দেশের রাজনীতি এমন হওয়া উচিত সেখানে সমালোচনা থাকবে, প্রতিদ্বন্দ্বিতা থাকবে কিন্তু প্রতিহিংসা থাকবে না। অবশ্যই সরকারের সমালোচনা থাকবে সেটি হতে হবে বস্তুনিষ্ঠ সমালোচনা। কিন্তু দলকানা ও বধিরের মতো সমালোচনা নয়। তাহলেই আমরা সবাই মিলে দেশকে স্বপ্নের ঠিকানায় পৌঁছে দিতে পারবো।

প্রসঙ্গত, দুই দিনব্যাপী এ চলচ্চিত্র প্রদর্শনী ও সেমিনারে জাতীয় গণমাধ্যম ইনস্টিটিউট এবং বাংলাদেশ চলচ্চিত্র ও টেলিভিশন ইনস্টিটিউট নির্মিত ১১টি স্বল্পদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্র প্রদর্শন করা হবে। পাশাপাশি ২১ ডিসেম্বর বিকেলে ‘চিরঞ্জীব মুজিব’ চলচ্চিত্র (বঙ্গবন্ধুর জীবনালম্বনে প্রধানমন্ত্রীর স্ক্রিপ্টে রাইটার কর্তৃক নির্মিত) প্রদর্শিত হবে। এছাড়া ২১ ডিসেম্বর দুপুর ২টা থেকে ‘বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধভিত্তিক চলচ্চিত্র: প্রত্যাশা ও প্রাপ্তি’ শীর্ষক সেমিনার অনুষ্ঠিত হবে।এতে বিশিষ্ট চলচ্চিত্র গবেষক অনুপম হায়াত মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করবেন। সেমিনারে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রণালয়ের সচিব মো. মকবুল হোসেন।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো সংবাদ

এক ক্লিকে বিভাগের খবর