বৃহস্পতিবার, ১৮ জুলাই ২০২৪, ০৪:৩০ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের (ডিএমপি) অতিরিক্ত কমিশনার ও গোয়েন্দা শাখার (ডিবি) প্রধান মোহাম্মদ হারুন অর রশীদ বলেছেন, সংঘর্ষ-ভাঙচুরের ঘটনায় অভিযান চালিয়ে আমরা অনেককে গ্রেফতার করেছি। তারা আমাদের অনেক নাম দিয়েছে। যারা জড়িত সকলের নাম আছে। সময় হলে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেব। বুধবার (১৭ জুলাই) বিকালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় এলাকায় ভিসি চত্বরে সাংবাদিকদের সামনে তিনি এসব কথা বলেন। হারুন বলেন, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা রেলের স্লিপার খুলতে পারে না, মেট্রো স্টেশন ভাঙচুর করতে পারে না, হাইওয়েও আটকাতে পারে না। বিশেষ একটি মহল তাদের ওপর ভর করে এমন কার্যক্রম চালাচ্ছে। জড়িত সবার নাম আছে, সময় হলে ব্যবস্থা: ডিবি হারুন কোটা আন্দোলনের কর্মসূচি বিএনপি-জামায়াত ঠিক করে দিচ্ছে: পররাষ্ট্রমন্ত্রী কোটা সংস্কার আন্দোলন সাধারণ ছাত্রদের হাতে নেই ঢাকায় বৃহস্পতিবার মুক্তিযোদ্ধা সমাবেশের ডাক হল ছাড়ছেন ঢাবি শিক্ষার্থীরা ঢাবি ক্যাম্পাসজুড়ে পুলিশ, হলগুলো ফাঁকা সারা দেশে ‘কমপ্লিট শাটডাউন’ ঘোষণা আন্দোলনকারীদের হত্যাকাণ্ড ও অনভিপ্রেত ঘটনায় বিচার বিভাগীয় তদন্ত করা হবে: প্রধানমন্ত্রী আদালতের রায় আসা পর্যন্ত শিক্ষার্থীদের ধৈর্য ধরার আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর

ভালোবাসা দিবসে প্রধানমন্ত্রীর উপহারের ঘর পেলেন রুমা

ভয়েসবাংলা প্রতিবেদক / ২১১ বার
আপডেট : সোমবার, ১৪ ফেব্রুয়ারী, ২০২২

রুমার বয়স যখন ছয়, তখন তাকে পিরোজপুর শহরের রাস্তায় ফেলে যান স্বজনেরা। এরপর থেকে তার ফুটপাতে বেড়ে ওঠা। শুরু হয় ভিক্ষাবৃত্তি করে জীবন চালানো। পরে সে শুরু করে ভ্যান চালিয়ে বিভিন্ন জায়গায় পানি দেওয়া। পাশাপাশি চলে সবজি বিক্রি। একসময় বিয়ে হয় রুমার। বিয়ের সাড়ে সাত বছর পর তার একটি ছেলে সন্তান হয়। ছেলে মো. ইব্রাহিমের বয়স এখন পাঁচ বছর। দুই বছর আগে রুমা ও তার সন্তানকে রেখে স্বামী অন্যত্র বিয়ে করে চলে যান। আবার একা হয়ে যান রুমা। ভ্যানে পানি দেওয়া ও সবজি বিক্রি করা সামান্য আয়ে খেয়ে না খেয়ে দিন চলছিল রুমা ও তার সন্তানের। রাতে ফুটপাতই ছিল তাদের ঠিকানা।

স্থানীয় সংবাদকর্মী আবির হাসান সংগ্রামী রুমা ও তার সন্তানের জীবনের কষ্টের কথা তুলে ধরেন সংবাদ মাধ্যমে। এরপর বিষয়টি পিরোজপুর সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বশির আহমেদ জানতে পেরে রুমা বেগমের জন্য প্রধানমন্ত্রীর উপহারের একটি ঘরের ব্যবস্থা করে দেন। সোমবার ১৪ ফেব্রুয়ারি বিশ্ব ভালোবাসা দিবসে পিরোজপুর সদর উপজেলার টোনা ইউনিয়নের লখাকাঠি গ্রামে রুমা বেগমকে দেওয়া তার ঘরের পাশেই কর্মসংস্থানের জন্য তৈরি করা একটি দোকানের চাবি হস্তান্তর করা হয়।

পিরোজপুর সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. বশির আহমেদ, সহকারী কমিশনার ভূমি ফারজানা আক্তার, সদর উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা মো. আমিরুল ইসলাম, সদর উপজেলা সমাজসেবা কর্মকর্তা মো. মতিউর রহমান, টোনা ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান মো. ইমরান আলম খান হারুন এ সময় উপস্থিত ছিলেন।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বশির আহমেদ বলেন, স্বামী পরিত্যক্তা রুমা বেগম শহরের বিভিন্ন স্থানে ভ্যান চালিয়ে জীবিকা নির্বাহ করতো। মুজিববর্ষে তাকে প্রধানমন্ত্রীর উপহার হিসেবে একটি ঘর দেওয়া হয়েছে। আর কর্মসংস্থানের জন্য তার ঘরের পাশে একটি ঘর করে সদর উপজেলা সমাজসেবা বিভাগের অর্থায়নে পণ্যসামগ্রী কিনে দেওয়া  হয়েছে। তার আর কষ্ট করে ভ্যান চালিয়ে জীবিকা নির্বাহ করতে হবে না।

সদর উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা মো. আমিরুল ইসলাম বলেন, রুমা বেগমের উপহারের ঘরের সঙ্গে অতিরিক্ত আরও প্রায় ৫০ হাজার টাক ব্যয় করে দোকান ঘর করে দেওয়া হয়েছে। আর সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয়ের ভিক্ষুক পুনর্বাসন প্রকল্প থেকে ৩০ হাজার টাকার মালামাল কিনে দেওয়া হয়েছে।

রুমা বেগম বলেন, আমি প্রধানমন্ত্রীর জন্য দোয়া করি। দোয়া করি সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বশির আহমেদের জন্যও। এখন আর আমাকে ভ্যান চালাতে হবে না। প্রধানমন্ত্রীর দেওয়া উপহারের ঘরে থাকবো। সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয় থেকে পাওয়া দোকানে পণ্য বিক্রি করে যে আয় হবে তা দিয়ে চলবো।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো সংবাদ

এক ক্লিকে বিভাগের খবর