সোমবার, ১৫ জুলাই ২০২৪, ০৪:৫৯ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
আর্জেন্টিনার ঐতিহাসিক হ্যাটট্রিক শিরোপার হাতছানি কোপায় আর্জেন্টিনা-কলম্বিয়া ও ইউরো চ্যাম্পিয়নশিপ ইংল্যান্ড-স্পেন মুখোমুখি যুক্তরাষ্ট্রের ইতিহাসে কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ গুপ্তহত্যার প্রচেষ্টা নেপালের নতুন প্রধানমন্ত্রী কেপি শর্মা অলি তিন হাজার বাংলাদেশি কর্মী নেবে ইইউভুক্ত চার দেশ : পররাষ্ট্রমন্ত্রী প্রধানমন্ত্রীর জাতীয় রপ্তানি ট্রফি প্রদান দুর্নীতির বিরুদ্ধে অভিযান সরকারের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ন করে না : প্রধানমন্ত্রী ট্রাম্পের ওপর হামলায় পররাষ্ট্রমন্ত্রীর নিন্দা রাষ্ট্রপতির কাছে স্মারকলিপি জমা দিলেন আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা ট্রাম্পের হামলাকারীর নাম পরিচয় জানালো এফবিআই

বাইডেনের পাশে ডেমোক্র্যাট নেতারা, বাড়ছে বিভেদ

ভয়েস বাংলা প্রতিবেদক / ৪ বার
আপডেট : মঙ্গলবার, ৯ জুলাই, ২০২৪

যুক্তরাষ্ট্রের ক্যাপিটল হিলে ডেমোক্র্যাট নেতারা প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের পাশে দাঁড়াচ্ছেন। যদিও পার্টির অনেক আইনপ্রণেতা একান্তে ও প্রকাশ্যে তার পুনর্নির্বাচনের যোগ্যতা নিয়ে প্রশ্ন তুলছেন। গত মাসে আটলান্টায় বিতর্কে তার বিপর্যস্ত পারফরম্যান্সের পর এই অসন্তোষ বেড়েছে। মার্কিন সংবাদমাধ্যম দ্য হিল এ খবর জানিয়েছে।
প্রতিনিধি পরিষদের সংখ্যালঘু নেতা হাকিম জেফরিস ও সিনেটের সংখ্যাগরিষ্ঠ নেতা চার্লস শুমার সোমবার বাইডেনের প্রতি তাদের সমর্থনের কথা পুনরায় নিশ্চিত করেছেন। যদিও বিতর্কের পর শুরু হওয়া নেতিবাচক প্রতিক্রিয়া এখনও থামেনি।
জেফরিস বলেন, বিতর্কের পরের দিনই আমি প্রকাশ্যে বলেছিলাম যে আমি প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন ও ডেমোক্র্যাটিক প্রার্থীকে সমর্থন করি। আমার অবস্থান অপরিবর্তিত। তবে ডেমোক্র্যাটদের মধ্যে বাইডেনের পুনর্নির্বাচন নিয়ে বিরোধিতা ক্রমেই বাড়ছে। আর্মড সার্ভিস কমিটির র‍্যাংকিং সদস্য প্রতিনিধি অ্যাডাম স্মিথ সোমবার ষষ্ঠ হাউজ ডেমোক্র্যাট হিসেবে প্রকাশ্যে বাইডেনকে সরে যাওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন। তিনি বলেছেন, বাইডেনের অতীতে ভালো রেকর্ড থাকলেও তিনি এখন আর ভোটারদের উজ্জীবিত করতে পারছেন না।
স্মিথ সিএনএন-এর ‘দ্য লিড’ অনুষ্ঠানে বলেছেন. আমি মনে করি তার সরে দাঁড়ানো উচিত। এটি স্পষ্ট হয়ে গেছে যে তিনি ডেমোক্র্যাটিক বার্তা বহনের জন্য সেরা ব্যক্তি নন।
এদিকে সোমবার বাইডেন আরও কয়েকজন বিশিষ্ট আইনপ্রণেতার সমর্থন পেয়েছেন। যারা ৪ জুলাইয়ের দীর্ঘ ছুটির পর ওয়াশিংটনে ফিরে এসে তার পক্ষে দাঁড়িয়েছেন। প্রতিনিধি আলেকজান্দ্রিয়া ওকাসিও-কর্তেজ (ডি-ওয়াই) বলেন, বাইডেন স্পষ্ট করে দিয়েছেন যে তিনি এই লড়াইয়ে আছেন এবং তিনি সরে যাচ্ছেন না। আমি নিশ্চিত করছি, আমি তাকে সমর্থন করছি এবং আমরা নভেম্বর মাসে জিততে পারি তা নিশ্চিত করতে চাই।
মঙ্গলবার সকাল ৯০ মিনিটের এক সভায় এই অভ্যন্তরীণ বিভেদ প্রকট হয়ে উঠবে বলে ধারণা করা হচ্ছে। ওই বৈঠকে ডেমোক্র্যাটিক নেতারা বিতর্কের পর প্রথমবারের মতো হাউজ ডেমোক্র্যাটিক ককাসের সদস্যদের সঙ্গে মিলিত হবেন।
বিতর্কে বাইডেন মাঝে মাঝে অসংলগ্ন ছিলেন। কথা বলতে গিয়ে হোঁচট খেয়েছিলেন এবং বিষয়বস্তু পরিবর্তন করেছিলেন। এই পারফরম্যান্স ডেমোক্র্যাটদের বিস্মিত করেছে। তার দ্বিতীয় মেয়াদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করা নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে। প্রতিনিধি স্কট পিটার্স সোমবার বলেছেন, তিনি বাইডেনকে সরে যেতে বলার জন্য প্রস্তুত নন। তবে এই সপ্তাহে নিবিড়ভাবে পর্যবেক্ষণ করবেন যে প্রচারাভিযানের কোনও কৌশল আছে কিনা।
বাইডেনের সক্ষমতা নিয়ে উদ্বেগ কমাতে এবং ট্রাম্পকে হোয়াইট হাউস থেকে দূরে রাখতে দলের ঐক্য বজায় রাখতে ব্যস্ত জেফরিস ও অন্যান্য ডেমোক্র্যাট নেতাদের জন্য পরিস্থিতি একটি কঠিন চ্যালেঞ্জ হয়ে দেখা দিয়েছে।
প্রতিনিধি এমি বেরা বলেছেন, বাইডেন যদি লড়াইয়ে থাকেন, তাহলে তিনি আমাদের প্রার্থী। আর আমরা যদি বিভক্ত থাকি তাহলে আমরা এই নির্বাচন জিততে পারব না। সমর্থন নিশ্চিত রাখতে সোমবার কংগ্রেশনাল ব্ল্যাক ককাসের (সিবিসি) সদস্যদের সঙ্গে একটি ফোনালাপ করেছেন বাইডেন। যা তাকে পুনর্নির্বাচনের পক্ষে সমর্থন জোরদার করার সুযোগ দিতে পারে।
পরিস্থিতি আরও উত্তপ্ত হয়ে উঠতে পারে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে।কারণ মঙ্গলবারের সভা দলীয় প্রচারণা সদর দফতরে অনুষ্ঠিত হবে। বৈঠকে আইনপ্রণেতাদের ফোন আনার ক্ষেত্রে নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো সংবাদ

এক ক্লিকে বিভাগের খবর