সোমবার, ১৫ জুলাই ২০২৪, ০৫:৫৬ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
আর্জেন্টিনার ঐতিহাসিক হ্যাটট্রিক শিরোপার হাতছানি কোপায় আর্জেন্টিনা-কলম্বিয়া ও ইউরো চ্যাম্পিয়নশিপ ইংল্যান্ড-স্পেন মুখোমুখি যুক্তরাষ্ট্রের ইতিহাসে কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ গুপ্তহত্যার প্রচেষ্টা নেপালের নতুন প্রধানমন্ত্রী কেপি শর্মা অলি তিন হাজার বাংলাদেশি কর্মী নেবে ইইউভুক্ত চার দেশ : পররাষ্ট্রমন্ত্রী প্রধানমন্ত্রীর জাতীয় রপ্তানি ট্রফি প্রদান দুর্নীতির বিরুদ্ধে অভিযান সরকারের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ন করে না : প্রধানমন্ত্রী ট্রাম্পের ওপর হামলায় পররাষ্ট্রমন্ত্রীর নিন্দা রাষ্ট্রপতির কাছে স্মারকলিপি জমা দিলেন আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা ট্রাম্পের হামলাকারীর নাম পরিচয় জানালো এফবিআই

জার্মানির নির্বাচনে সিডিইউ পরাজয়, দলেই সমর্থন হারাচ্ছেন লাশেট

ভয়েসবাংলা ডেস্ক / ২৭০ বার
আপডেট : বুধবার, ২৯ সেপ্টেম্বর, ২০২১

জার্মানির সংসদ নির্বাচনে ঐতিহাসিক বিপর্যয়ের পর অ্যাঙ্গেলা ম্যার্কেলের ক্রিশ্চিয়ান ডেমোক্রেটিক ইউনিয়ন (সিডিইউ/সিএসইউ) চ্যান্সেলর পদপ্রার্থী আরমিন লাশেট প্রবল চাপের মুখে পড়েছেন। তার ‘উদ্ধত মনোভাবে’ অনেক নেতা বিরক্তি প্রকাশ করছেন। সমর্থন হারাচ্ছেন নিজ দলেই।

জার্মান সংবাদমাধ্যম ডয়চে ভেলে’র খবরে বলা হয়েছে, ঘরে-বাইরে প্রচণ্ড চাপের মুখে রয়েছেন আরমিন লাশেট। শিবিরের মধ্যে নেপথ্যে ও প্রকাশ্যে তার বিরুদ্ধে সমালোচনা বেড়ে চলেছে। নির্বাচনের ফলাফল স্পষ্ট হয়ে যাওয়ার পরেও তিনি যেভাবে সরকার গড়ার দাবি করেছিলেন, সেই বিষয়টি দলের অনেক নেতা-কর্মী মোটেই ভালো চোখে দেখছেন না।

নির্বাচনে কার্যত ভরাডুবির পর এবং শিবির তালিকার দ্বিতীয় স্থানে নেমে যাওয়া সত্ত্বেও লাশেটের ‘ঔদ্ধত্য’ অনেকের বিরক্তির কারণ হয়ে উঠেছে। শিবিরের ঐতিহাসিক নির্বাচনি বিপর্যয়ের পর চাপের মুখে তিনি পিছিয়ে গিয়ে ‘দেশের প্রয়োজনে’ জোট সরকার গড়ার চেষ্টার কথা বলেছেন। অর্থাৎ নির্বাচনে জয়ী এসপিডি দল জোট গঠনে ব্যর্থ হলে তবেই তিনি সেই প্রচেষ্টা চালাতে চান। তবে স্পষ্ট ভাষায় হার স্বীকার এবং জয়ের জন্য এসপিডি দল বা দলের চ্যান্সেলর পদপ্রার্থীকে অভিনন্দন জানানোর সৌজন্যও তিনি দেখাননি।

সিডিইউ ও সিএসইউ দলের একাধিক নেতা লাশেটের এমন আচরণের তীব্র সমালোচনা করছেন। তাদের মতে, সবার আগে বিনীত মনোভাব দেখিয়ে ভোটারদের রায় শ্রদ্ধার সঙ্গে মেনে নেওয়া উচিত।

হেসে রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী ফল্কার বুফিয়ে বলেছেন, এই ফলাফলের পর ইউনিয়ন শিবিরের সরকার গড়ার দায়িত্ব নেওয়ার  কোনও সুযোগ নেই। দলের যুব শাখার প্রধান টিলমান কুবান বলেন, ‘আমরা নির্বচনে হেরে গেছি। ব্যস, আর কিছু বলার নেই।’ তার মতে, সরকার গড়ার দায়িত্ব এখন এসপিডি, সবুজ দল ও এফডিপি দলের কাঁধে বর্তায়।

এসপিডি দলের নেতারাও লাশেটের ‘ঔদ্ধত্য’ সম্পর্কে বিরক্তি প্রকাশ করছেন। দলের সাধারণ সম্পাদক লার্স ক্লিংবাইল বলেন, কেউ আরমিন লাশেটকে চ্যান্সেলর হিসেবে চায় না। আশা করি আগামী কয়েক দিনে তিনিও তা উপলব্ধি করবেন। এমন প্রেক্ষাপটে ইউনিয়ন শিবিরের মধ্যে লাশেটের ভবিষ্যৎ নিয়ে জল্পনা-কল্পনা চলছে। ইউনিয়ন শিবিরের কয়েকজন নেতা সরাসরি অথবা পরোক্ষভাবে দলের নেতা হিসেবে লাশেটের অপসারণের ডাক দিচ্ছেন। নির্বাচনে রেকর্ড মাত্রার বিপর্যয়ের পর তারা দলের নেতৃত্ব ও কর্মসূচি ঢেলে সাজানোর ডাক দিয়েছেন। লাশেটের নিজের দলের নেতা ও প্রতিদ্বন্দ্বী নরবার্ট রোটগেন সবার আগে নির্বাচনি ফলাফলের বিশ্লেষণের পর ব্যক্তি ও পদের বিষয়ে সিদ্ধান্তের পক্ষে সওয়াল করেছেন।

উল্লেখ্য, সোমবার প্রকাশিত এক জনমত সমীক্ষায় ৭১ শতাংশ মানুষ লাশেটের সরকার গড়ার উদ্যোগের বিরোধিতা করেছেন। প্রকাশিত ফলাফল- সামাজিক গণতন্ত্রী এসপিডি (২৫.৭ শতাংশ), ক্রিশ্চিয়ান গণতন্ত্রী সিডিইউ/সিএসইউ (২৪.৫ শতাংশ), সবুজ দল (১৪.৩ শতাংশ), মুক্ত গণতন্ত্রী এফডিপি (১১.৫ শতাংশ), অভিবাসনবিরোধী এএফডি (১০.৫ শতাংশ), বাম দল (৫ শতাংশ) ও অন্যান্য (৮.৫ শতাংশ) ভোট পেয়েছে৷ সূত্র: ডয়চে ভেলে


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো সংবাদ

এক ক্লিকে বিভাগের খবর