বৃহস্পতিবার, ১৮ জুলাই ২০২৪, ০৫:১৪ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের (ডিএমপি) অতিরিক্ত কমিশনার ও গোয়েন্দা শাখার (ডিবি) প্রধান মোহাম্মদ হারুন অর রশীদ বলেছেন, সংঘর্ষ-ভাঙচুরের ঘটনায় অভিযান চালিয়ে আমরা অনেককে গ্রেফতার করেছি। তারা আমাদের অনেক নাম দিয়েছে। যারা জড়িত সকলের নাম আছে। সময় হলে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেব। বুধবার (১৭ জুলাই) বিকালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় এলাকায় ভিসি চত্বরে সাংবাদিকদের সামনে তিনি এসব কথা বলেন। হারুন বলেন, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা রেলের স্লিপার খুলতে পারে না, মেট্রো স্টেশন ভাঙচুর করতে পারে না, হাইওয়েও আটকাতে পারে না। বিশেষ একটি মহল তাদের ওপর ভর করে এমন কার্যক্রম চালাচ্ছে। জড়িত সবার নাম আছে, সময় হলে ব্যবস্থা: ডিবি হারুন কোটা আন্দোলনের কর্মসূচি বিএনপি-জামায়াত ঠিক করে দিচ্ছে: পররাষ্ট্রমন্ত্রী কোটা সংস্কার আন্দোলন সাধারণ ছাত্রদের হাতে নেই ঢাকায় বৃহস্পতিবার মুক্তিযোদ্ধা সমাবেশের ডাক হল ছাড়ছেন ঢাবি শিক্ষার্থীরা ঢাবি ক্যাম্পাসজুড়ে পুলিশ, হলগুলো ফাঁকা সারা দেশে ‘কমপ্লিট শাটডাউন’ ঘোষণা আন্দোলনকারীদের হত্যাকাণ্ড ও অনভিপ্রেত ঘটনায় বিচার বিভাগীয় তদন্ত করা হবে: প্রধানমন্ত্রী আদালতের রায় আসা পর্যন্ত শিক্ষার্থীদের ধৈর্য ধরার আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর

চামড়ায় ৫০০ কোটি ডলারের ভবিষ্যৎ

রিপোর্টার / ১৩৮ বার
আপডেট : রবিবার, ১ আগস্ট, ২০২১

একসময় তৈরি পোশাকের পর দেশের প্রধান রফতানি পণ্য ছিল চামড়া। কিন্তু গত কয়েকবছর ধরে বাজারে দারুণ অস্থিরতা। লাখ টাকার গরুর চামড়া বিক্রি হচ্ছে তিন শ’ টাকায়। বিক্রি করতে না পেরে চামড়া মাটিতে পুঁতে ফেলার ঘটনাও ঘটেছে। এ বছর আবার লবণ দিতে দেরি করায় পচে গেছে অনেকগুলো।

চামড়া সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছেন, বাংলাদেশের চামড়ার মান অন্য অনেক দেশের চেয়ে ভালো। তারপর এ দশা কেন? বিশ্লেষকরা বলছেন, চামড়া খাতের উন্নয়নে শিক্ষিত উদ্যোক্তা শ্রেণি আসছে না। এ জন্য দরকার সরকারি পৃষ্ঠপোষকতা। তা না হলে সম্ভাবনাময় এ খাত সফলতার মুখ দেখবে না।

বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি জানিয়েছেন, চামড়া বাংলাদেশের সম্ভাবনাময় খাত। এ খাতের উন্নয়নে সরকার নানা উদ্যোগ নিচ্ছে। গতবছরের তুলনায় কাঁচা চামড়ার দামও বাড়ানো হয়েছে। তিনি আরও জানান, আমাদের কাঁচামাল ও দক্ষ জনশক্তি রয়েছে। সক্ষমতা পুরোপুরি কাজে লাগাতে পারলে এ খাত থেকে বছরে ৫০০ কোটি ডলারের বেশি আয় করা সম্ভব।

খাত সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছেন, ষাটের দশকে যাত্রা শুরু করা চামড়া শিল্প পাঁচ দশকেও খুব একটা এগোয়নি। অথচ আশির দশকে যাত্রা শুরু করা পোশাক হয়ে গেছে অর্থনীতির অন্যতম ভিত। পোশাক শ্রমিকদের জন্য নিরাপদ কর্মপরিবেশ ও ন্যূনতম মজুরিও আছে। অথচ চামড়া শিল্পের শ্রমিকদের আজও কাজ করতে হচ্ছে পুঁতিগন্ধময় পরিবেশে।

চামড়ার হিসাব-নিকাশ

জানা গেছে, মোট দেশজ উৎপাদনে (জিডিপি) চামড়ার অবদান এখন মাত্র শূন্য দশমিক ৩৫ শতাংশ। পরিসংখ্যান ব্যুরোর শ্রম জরিপের তথ্য অনুযায়ী ২০১৬ সালে এ খাতে শ্রমিক ছিল ১ লাখ ২৯ হাজার।

রফতানি উন্নয়ন ব্যুরোর (ইপিবি) তথ্যে দেথা গেছে, ২০১৩-১৪ অর্থবছরে এ খাতে রফতানি আয় ছিল ১১২ কোটি ডলার। ২০১৬-১৭ তে এসে তা বেড়ে ১২৩ কোটি ডলার হয়।

পরের দুই অর্থবছরে চামড়া শিল্পের রফতানি আয় উল্লেখযোগ্য হারে কমেছে। ২০১৭-১৮ অর্থবছরে ১০৮ কোটি ডলার ও ২০১৮-১৯ অর্থবছরে হয় ১০২ কোটি ডলার। ২০১৯-২০ অর্থবছরে আরও কমে ৭৯ কোটি ৭৬ লাখ ডলারে নেমে আসে।

অবশ্য সদ্য সমাপ্ত ২০২০-২১ অর্থবছরের এ খাত থেকে আয় হয়েছে ৯৪ কোটি ১৬ লাখ ডলার। গত অর্থবছরের একই সময়ের তুলনায় যা ১৮ দশমিক ৬ শতাংশ বেশি।

জানা গেছে, বাংলাদেশের চামড়া ও চামড়াজাত পণ্যের প্রধান বাজার ইউরোপ। সেখানকার করোনার প্রাদুর্ভাব কমলে ফিরে আসতে পারে চামড়ার সুদিন। তখন আবার বাড়বে চামড়ার দাম।

দাম কমলে ট্যানারি মালিকের লাভ

দেশে কোরবানির ঈদের সঙ্গে কাঁচা চামড়ার সরবরাহের সম্পর্ক অনেক দিনের। তথ্যে দেখা যায়, দেশে প্রায় ৩১ কোটি ৫০ লাখ বর্গফুট ক্রাস্ট ও ফিনিশিড চামড়ার সরবরাহ রয়েছে। এর একটি বড় অংশ আসে কোরবানির সময়। এ সময় চামড়ার দাম পড়ে যাওয়ায় পুরো লাভটাই যাচ্ছে আড়তদার, ব্যবসায়ী ও ট্যানারি মালিকদের পকেটে।

এদিকে চামড়ার ন্যায্য দাম নিশ্চিত করতে কাঁচা চামড়া রফতানির অনুমতিও দিয়েছে সরকার। ইতোমধ্যে প্রায় এক কোটি বর্গফুট ওয়েট ব্লু চামড়া রফতানির অনুমতি পেয়েছে দেশের পাঁচটি প্রতিষ্ঠান।

লবণ নিয়ে নয়ছয়

কাঁচা চামড়ায় লবণ দিতে হয় দ্রুত। চামড়া আলাদা করার চার ঘণ্টার মধ্যে যদি লবণ দেওয়া যায় তবে সবচেয়ে ভালো। এবার ঈদের আগে বলা হয়েছিল লবণের ঘাটতি নেই। আমদানিরও দরকার হবে না। কিন্তু বাজারে দেখা গেছে ভিন্ন চিত্র। মৌসুমি ব্যবসায়ীরা বলছেন লবণের দাম বেড়ে গেছে। কোরবানির সময় চাহিদা বাড়ে বলে সুযোগটি হাতছাড়া করেনি লবণ ব্যাপারীরা।

ছিল না সরকারের নজরদারি। তাই ৬০০ টাকা দামের ৭৫ কেজির বস্তার লবণ বিক্রি হয়েছে ৯০০ টাকায়। ওজনও ছিল কম। ৭৫ কেজির পরিবর্তে অনেক বস্তায় ছিল  ৬০ কেজি। ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীর জন্য যা বেশ হতাশাজনক।

বাংলাদেশ ট্যারিফ কমিশনের তথ্যমতে, আন্তর্জাতিক বাজারে কাঁচা চামড়ার দাম তুলনামূলকভাবে বাংলাদেশের চেয়ে বেশি। চাহিদা ও সরবরাহের ভিত্তিতে দাম নির্ধারিত হয়। তাই সঠিক তুলনা সম্ভব নয়।

বর্জ্য মিশছে নদীতে

চামড়া শিল্পের সম্ভাবনাকে মাথায় রেখে সাভারে গড়ে উঠেছে আধুনিক চামড়া শিল্পনগরী। প্রত্যাশা ছিল সাভারের এখানকার কারখানাগুলো উৎপাদনে গেলে রফতানি আয় বাড়বে। কিন্তু এই সময়ে উল্টো রফতানি আয় ধারাবাহিকভাবে কমেছে। অবশ্য হাজারীবাগের আড়াই শ’ কারখানার মধ্যে স্থানান্তরিত হয়েছে দেড় শ’টি।

এখনও নানা জটিলতায় জর্জরিত সাভার শিল্পনগরীর কেন্দ্রীয় বর্জ্য শোধনাগার। পুরোপুরি চালু হয়নি সেট। ট্যানারিগুলো বর্জ্য খোলা আকাশের নিচে ফেলছে। সেটা গিয়ে মিশছে বুড়িগঙ্গা ও ধলেশ্বরীর পানিতে।

এ প্রসঙ্গে বিজনেস ইনিশিয়েটিভ লিডিং ডেভেলপমেন্ট (বিল্ড)-এর প্রধান নির্বাহী ফেরদাউস আরা বেগম জানিয়েছেন, ‘চামড়া শিল্পের খবরে যে ছবিগুলো আমরা দেখি সেগুলো বেশ করুণ। অপরিচ্ছন্ন, জীর্ণ দিনমজুররা অত্যন্ত নোংরা পরিবেশে হাঁটাচলা করছেন লালবাগ-পোস্তা এবং অন্যান্য জায়গায়। তারা যে খুব শিগগিরই অসুস্থ হয়ে পড়বেন, এতে সন্দেহ নেই। সিটি করপোরেশন ও সংশ্লিষ্ট খাতের উদ্যোক্তাদের অনুরোধ করতে চাই- অন্তত খালি পায়ে এদের কাজ করতে যেন না দেওয়া হয়। হাতে যেন অন্তত একজোড়া গ্লাভস থাকে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো সংবাদ

এক ক্লিকে বিভাগের খবর