বৃহস্পতিবার, ১৮ জুলাই ২০২৪, ১২:০৬ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের (ডিএমপি) অতিরিক্ত কমিশনার ও গোয়েন্দা শাখার (ডিবি) প্রধান মোহাম্মদ হারুন অর রশীদ বলেছেন, সংঘর্ষ-ভাঙচুরের ঘটনায় অভিযান চালিয়ে আমরা অনেককে গ্রেফতার করেছি। তারা আমাদের অনেক নাম দিয়েছে। যারা জড়িত সকলের নাম আছে। সময় হলে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেব। বুধবার (১৭ জুলাই) বিকালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় এলাকায় ভিসি চত্বরে সাংবাদিকদের সামনে তিনি এসব কথা বলেন। হারুন বলেন, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা রেলের স্লিপার খুলতে পারে না, মেট্রো স্টেশন ভাঙচুর করতে পারে না, হাইওয়েও আটকাতে পারে না। বিশেষ একটি মহল তাদের ওপর ভর করে এমন কার্যক্রম চালাচ্ছে। জড়িত সবার নাম আছে, সময় হলে ব্যবস্থা: ডিবি হারুন কোটা আন্দোলনের কর্মসূচি বিএনপি-জামায়াত ঠিক করে দিচ্ছে: পররাষ্ট্রমন্ত্রী কোটা সংস্কার আন্দোলন সাধারণ ছাত্রদের হাতে নেই ঢাকায় বৃহস্পতিবার মুক্তিযোদ্ধা সমাবেশের ডাক হল ছাড়ছেন ঢাবি শিক্ষার্থীরা ঢাবি ক্যাম্পাসজুড়ে পুলিশ, হলগুলো ফাঁকা সারা দেশে ‘কমপ্লিট শাটডাউন’ ঘোষণা আন্দোলনকারীদের হত্যাকাণ্ড ও অনভিপ্রেত ঘটনায় বিচার বিভাগীয় তদন্ত করা হবে: প্রধানমন্ত্রী আদালতের রায় আসা পর্যন্ত শিক্ষার্থীদের ধৈর্য ধরার আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর

ক্যাপ্টেন নওশাদ মারা গেছেন : নিথর হয়ে পড়েন নওশাদ, জরুরি অবতরণ করেন মোস্তাকিম

রিপোর্টার / ২৮১ বার
আপডেট : সোমবার, ৩০ আগস্ট, ২০২১

বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের ক্যাপ্টেন নওশাদ আতাউল কাইয়ুম মারা গেছেন (ইন্না……রাজিউন। আজ সোমবার দুপুরে বাংলাদেশ এয়ারলাইন্স পাইলটস অ্যাসোসিয়েশনের (বাপা) সভাপতি ক্যাপ্টেন মাহবুবুর রহমান এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

ওমানের রাজধানী মাস্কাট থেকে ১২৪ জন যাত্রী নিয়ে ঢাকার পথে আসছিল বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের বোয়িং ৭৩৭-৮০০ উড়োজাহাজটি। ভারতের রায়পুরের আকাশে থাকাকালে হুট করেই নিথর হয়ে পড়েন ক্যাপ্টেন নওশাদ আতাউল কাইয়ুম। তখনই ককপিটের কন্ট্রোল নেন সঙ্গে থাকা ফার্স্ট অফিসার মোস্তাকিম, ঘোষণা করেন মেডিক্যাল ইমার্জেন্সি। ক্যাপ্টেন নওশাদ অসুস্থ হওয়ার ২৫ মিনিটের মধ্যে নাগপুরের ড. বাবাসাহেব আম্বেদকার আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে নিরাপদে অবতরণ করেন উড়োজাহাজটি।

গত ২৭ আগস্ট বিজি ০২২ ফ্লাইটে থাকা এক ক্রু’র বর্ণনায় উঠে এসেছে সেদিনের ঘটনা। সেই ফ্লাইটে ১২৪ জন যাত্রী ছাড়াও দু’জন ককপিট ক্রু ও ছয় জন কেবিন ক্রু ছিলেন। সেই ফ্লাইটে থাকা নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একজন কেবিন ক্রু বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, হুট করেই ককপিট থেকে ফার্স্ট অফিসার মোস্তাকিম জানালেন ক্যাপ্টেন নওশাদ অসুস্থ হয়ে পড়েছেন। ককপিটে গিয়ে আমরা তার অবস্থা দেখে বুঝতে পারি- তিনি মারাত্মকভাবে হার্ট অ্যাটাক করেছেন। তার নিজের যে খারাপ লাগছে কিংবা অসুস্থ বোধ করছেন- এ কথা বলারও সুযোগ পাননি। তিনি পুরোই কলাপ্স করেছেন। অথচ আমরা ফ্লাইট শুরুর পর তাকে খাবার দিয়েছিলাম, তিনি সেই খাবার খেয়েছেনও।

সেদিনের কঠিন সেই মুহূর্ত বর্ণনা করে এই কেবিন ক্রু বলেন, ফার্স্ট অফিসার মোস্তাকিম মেডিক্যাল ইমার্জেন্সি ঘোষণা করে দ্রুত জরুরি অবতরণের জন্য কন্ট্রোল টাওয়ারে যোগাযোগ শুরু করেন। আর আমরা কেবিন ক্রুরা মেডিক্যাল ইমার্জেন্সের এসওপি অনুযায়ী কেবিনে কোনও চিকিৎসক আছে কি না জানতে চাই। কারণ উড়োজাহাজে থাকা মেডিক্যাল বক্স চিকিৎসকদের মাধ্যমে ব্যবহার করতে হয়। তবে দুর্ভাগ্যবশত ফ্লাইটে কোনও ডাক্তার না থাকায় আমরা নিজেরাই সেগুলো ব্যবহার করে ক্যাপ্টেন নওশাদকে প্রাথমিক চিকিৎসা দিতে থাকি।

ঘটনার পর ২০-২৫ মিনিটে মতো শ্বাসরুদ্ধকর সময় পার করতে হয়েছে উল্লেখ করে সেই কেবিন ক্রু বলেন,ফার্স্ট অফিসার মোস্তাকিম কলকাতা এয়ার ট্রাফিক কন্ট্রোলের (এটিসি) সঙ্গে যোগাযোগ করতে থাকেন। এটিসি থেকে নাগপুর এয়ারপোর্টে অবতরণ করার পরামর্শ দেওয়া হয়। আমার ফার্স্ট অফিসারকে সাহস যোগানোর চেষ্টা করেছি, তিনিও দৃঢ়ভাবেই ফ্লাইট অপারেট করেছেন। ফ্লাইটটি নাগপুরে অবতরণ জন্য আমরা প্রস্তুতি নিয়েছি। পরিস্থিতি যাত্রীদের জানানো হয়েছিল। তারাও ভালোভাবেই আমাদের সহযোগিতা করেছেন। আগে থেকেই বিমানবন্দরে অ্যাম্বুলেন্স প্রস্তুত ছিল। রানওয়েতে নামামাত্র দ্রুত ক্যাপ্টেন নওশাদ আতাউল কাইউমকে উড়োজাহাজ থেকে নামিয়ে অ্যাম্বুলেন্স করে হাসপাতালে পাঠানো হয়।

ক্যাপ্টেন-নওশাদ-২ক্যাপ্টেন নওশাদ (ছবি: ফেসবুক থেকে নেওয়া)

এদিকে পতাকাবাহী বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্স জানিয়েছে, ফ্লাইটটি নাগপুরের ড. বাবা সাহেব আম্বেদকার আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে স্থানীয় সময় সকাল ১০টা ৪০ মিনিটে জরুরি অবতরণ করেছে। বর্তমানে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের ক্যাপ্টেন নওশাদ আতাউল কাইয়ুম ভারতের একটি হাসপাতালে নিবিড় পর্যবেক্ষণে (আইসিইউ) আছেন। মস্তিষ্কে রক্তক্ষরণ হওয়ায় তাকে লাইফ সাপোর্টে রাখা হয়েছে।

সবশেষ পরিস্থিতি নিয়ে গতকাল সোমবার (২৯ আগস্ট) বিমানের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও সিইও ড. আবু সালেহ্‌ মোস্তফা কামাল বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, ক্যাপ্টেন নওশাদের জন্য হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ একটি মেডিক্যাল বোর্ড গঠন করেছে। বোর্ডের সিদ্ধান্ত এখনও জানানো হয়নি। ক্যাপ্টেন নওশাদের পরিবারের সদস্যরাও হাসপাতালে রয়েছেন বলেও জানান তিনি।

প্রসঙ্গত,ক্যাপ্টেন নওশাদ আতাউল কাইয়ুম ১৯৭৭ সালের ১৭ অক্টোবর ঢাকায় জন্মগ্রহণ করেন। তিনি ২০০২ সালের ২০ সেপ্টেম্বর বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সে পাইলট হিসেবে যোগদান করেন।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো সংবাদ

এক ক্লিকে বিভাগের খবর